করোনা ঝুঁকি উপেক্ষা করে খালেদা জিয়াকে দেখতে হাসপাতালে নেতাকর্মীর ভিড়

Bangladesh Nationalist Party (BNP) Chairperson Begum Khaleda Zia attends a rally in Dhaka January 20, 2014. Opposition leader Khaleda has urged the ruling Awami League party to renew talks for forming a democratic government, dubbing the present government as “unconstitutional”. The BNP-led 18 party alliance boycotted Bangladesh’s parliamentary elections on January 5. REUTERS/Andrew Biraj (BANGLADESH – Tags: POLITICS ELECTIONS) – RTX17MS7

করোনা ঝুঁকি উপেক্ষা করে খালেদা জিয়াকে দেখতে হাসপাতালে নেতাকর্মীর ভিড়

twitter sharing button
linkedin sharing button
email sharing button
sharethis sharing button

দি হেডলাইনস বিডি ডেস্কঃ

কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাজা নির্বাহী আদেশে স্থগিত রেখে তাকে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত  ঘোষণা দিলে তা গণমাধ্যমে প্রচার হওয়ার পরপরই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে ভিড় জমিয়েছেন বিএনপির নেতাকর্মী-সমর্থকরা। করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে জনসমাগম এড়ানোর নির্দেশনা থাকলেও সেটি আমলেই আনছেন না তারা।

রুহুল কবির রিজভী বলেন, টেলিভিশনে দেখতে পেলাম, ম্যাডামকে আজ মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। সেটা দেখে ছুটে এসেছি। আমি মনে করি সারাদেশে আমাদের নেতাকর্মীদের মধ্যে যে উদ্বেগ, সেটার কিছুটা হলেও অবসান হবে। বিশ্বজুড়ে করোনা পরিস্থিতির মধ্যে আমাদের নেত্রী  মুক্তি পাচ্ছেন, সেটা আমাদের কিছু হলেও স্বস্তি দিচ্ছে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান এইচ এম জাহিদ হোসেন বলেন,  চেয়ারপারসন মুক্তি সংক্রান্ত সুপারিশ ফাইল আইন মন্ত্রণালয় থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। আশা করি আজই ম্যাডাম মুক্তি পাবেন।

তিনি বলেন, ম্যাডামকে এখান থেকে বিশেষায়িত হাসপাতাল নাকি বাসায় নেবে, এ বিষয়ে এখনো দল বা পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো সিদ্ধান্ত জানানো হয়নি।

সরেজমিনে দেখা যায়, নেতাকর্মীরা ভিড় করলেও হাসপাতালের কর্মীরা বারবার তাদের স্থান ত্যাগ করতে বলছেন। করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকির কথা মনে করিয়ে দিয়ে তাদের সরে যেতে বলছেন। তবে নেতাকর্মীরা বলছেন, কোনো ঝুঁকিই এখন তাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ না।

হাসপাতালে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির বিষয়ে তারা এখনো কিছু  জানেন না।

এর আগে, মঙ্গলবার বিকেলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক তার বাসায় সংবাদ সম্মেলন জানান, ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারা অনুযায়ী নির্বাহী আদেশে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত রেখে তাকে ছয় মাসের জন্য মুক্তি দেওয়া হচ্ছে। তবে শর্ত থাকছে, এই সময় তাকে নিজ বাসায় থাকতে হবে, দেশের বাইরে যেতে পারবেন না।

আইনমন্ত্রী জানান, এ বিষয়ক মতামত স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পাঠানো হয়েছে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সিদ্ধান্ত নিয়ে আজ খালেদা জিয়াকে ছেড়ে দিলে তিনি ২ বছর এক মাস ১৭ দিন পর কারাগার থেকে মুক্তি পাবেন।

Digiqole ad Digiqole ad

এ বিভাগের আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *